আজ

  • সোমবার
  • ১৮ই জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
  • ৪ঠা মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশ ২০৩৫ সালে সিঙ্গাপুরকে ছাড়িয়ে যাবে

  • ফেনী ট্রিবিউন ডেস্ক
  • চলমান অর্থনৈতিক উন্নয়নের ধারা অব্যাহত থাকলে ২০৩৫ সাল নাগাদ মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুরকে ছাড়িয়ে যাবে বাংলাদেশ। শুধু তাই নয়, ইউরোপের নরওয়ে, সুইডেনের মতো দেশকেও পেছনে ফেলবে বাংলাদেশ। তখন বিশ্ব অর্থনীতিতে এটি পরিণত হবে ২৫তম বৃহৎ অর্থনীতির দেশে।

    যুক্তরাজ্যভিত্তিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান ‘সেন্টার ফর ইকনোমিকস অ্যান্ড বিজনেস রিচার্স’ (সিইবিআর) – এর একটি প্রতিবেদনে বাংলাদেশ প্রসঙ্গে এমন পূর্বাভাস দেয়া হয়েছে।

    পদ্মা সেতু


    বিশ্বের ১৯৩টি দেশের অর্থনৈতিক গতিপ্রকৃতির ওপর করা ‘ওয়ার্ল্ড ইকনোমিক লিগ টেবিল ২০২১’ প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, অর্থনৈতিক সূচকে বাংলাদেশের বর্তমান অবস্থান ৪১তম। করোনার কারণে একই অবস্থান থাকবে ২০২১ সালেও।

    বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের ধারা তুলে ধরা হয়েছে এই প্রতিবেদনে। এতে দেখা যায়, ২০১০ সালে দেশটির অবস্থান ছিল ৫৯তম এবং ২০১৫ সালে ছিল ৪৮তম।

    সিইবিআরের প্র্রতিবেদনটিতে বলা হয়, ২০২৫ সালের মধ্যে অর্থনীতিতে বড় ধরনের উন্নতি হবে বাংলাদেশের। এই সময়ে অবস্থান দাঁড়াবে ৩৪তম। বর্তমানে এই অবস্থানে রয়েছে আফ্রিকার দেশ মিসর। এর ১০ বছর পর বর্তমান থাইল্যান্ডের অবস্থানে (২৫তম) চলে আসবে বাংলাদেশ।

    ২০৩৫ সালে বাংলাদেশ যেসব দেশকে ছাড়িয়ে যাবে তার মধ্যে রয়েছে- মালয়েশিয়া (২৮), সিঙ্গাপুর (৪০), ডেনমার্ক (৪৩), হংকং (৪৪), সংযুক্ত আরব আমিরাত (৩২), মিসর (৩৪), নরওয়ে (৩৭), আর্জেন্টিনা (৪৫), ইসরায়েল (২৯), আয়ারল্যান্ড (৩১), অস্ট্রিয়া (৪১), নাইজেরিয়া (২৭), বেলজিয়াম (38), সুইডেন (৩০), ইরান (৩৫) ও তাইওয়ান (২৬)।

    তখন বাংলাদেশের ঠিক ওপরে থাকবে পোল্যান্ড, ২৪তম; আর ২৩তম স্থানে থাকবে সুইজারল্যান্ড।

    অর্থনৈতিক পূর্বাভাস ও বিশ্লেষক বিষয়ক আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান সিইবিআরের প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, ২০২১ ও ২০২৫ সালের মধ্যে বাংলাদেশের বার্ষিক গড় জিডিপি অতিক্রম করবে ৬ দশমিক ৮ শতাংশ।

    ক্রয় ক্ষমতার ভিত্তিতে (পিপিপি) ২০২০ সালে বাংলাদেশের জিডিপি ৫ হাজার ১৩৯ কোটি ডলার, যা বাংলাদেশকে নিন্ম মধ্যবিত্ত আয়ের দেশে পরিণত করেছে।

    প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০২১ সালে বাংলাদেশের মোট দেশজ উৎপাদন (জিডিপি) হবে ৩১ হাজার ৩০০ কোটি ডলার। ২০২৫ সালের মধ্যে তা বেড়ে দাঁড়াবে ৪২ হাজার কোটি ডলার।

    ২০৩০ সাল নাগাদ জিডিপি দাঁড়াবে ৫৯ হাজার ৪০০ কোটি ডলার। এর পাঁচ বছর পর অঙ্কটি ছুঁইছুঁই করবে এক ট্রিলিয়ন, তথা ১ লাখ কোটি ডলার।

    সিইবিআর বলছে, করোনাভাইরাস মহামারির আগ পর্যন্ত জিডিপিতে বাংলাদেশ ভালো একটি অবস্থান ধরে এগিয়েছে। জনসংখ্যা বাড়ার হার মাঝারি পর্যায়ে থাকলেও গত পাঁচ বছরের প্রতি বছরই গড়ে ১ শতাংশের বেশি প্রবৃদ্ধি দেখেছে দেশ।

    বৈশ্বিক এই প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, করোনাভাইরাস সংকট ভালোভাবে মোকাবিলা করতে পারায় ২০২৮ সালের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রকে টপকে বিশ্বের শীর্ষ অর্থনীতির দেশে পরিণত হবে চীন।

    এই অবস্থানে যেতে ২০৩৩ সাল পর্যন্ত দেশটিকে অপেক্ষা করতে হতো। করোনা সংকট তা দ্রুততর করবে।

    ২০৩০ সালে ভারত হবে বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম অর্থনীতির দেশ। তখন পাকিস্তানের অবস্থান দাঁড়াবে ৩৬তম। শ্রীলঙ্কার অবস্থান দাঁড়াবে ৬৭তম এবং নেপালের অবস্থান হবে ৯৫তম।

    বিশ্ব অর্থনীতিতে বর্তমানে জাপানের অবস্থান তৃতীয়। কিন্তু ভারতের উত্থানে ২০৩০ সালের পর তাদের অবস্থান দাঁড়াবে চতুর্থ। জার্মানিকে পঞ্চম স্থানে পাঠিয়ে জাপানের অবস্থান হবে চতুর্থ। আর পঞ্চম স্থান থেকে সরে যুক্তরাজ্যের অবস্থান হবে ষষ্ঠ।

    শীর্ষ দশ থেকে সরে যাবে ইতালি, কানাডা ও দক্ষিণ কোরিয়া। তাদের জায়গায় ঢুকবে ইন্দোনেশিয়া, ব্রাজিল ও রাশিয়া।

    ফেনী ট্রিবিউন/এএএম/এটি


    error: Content is protected !! please contact me 01718066090